ইসলাম শব্দের অর্থ কি

প্রিয় পাঠক আসসালামু আলাইকুম, আজকের এই টিউটোরিয়ালের ইসলাম শব্দের অর্থ কি এই বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। আপনি যদি ইসলাম শব্দের অর্থ কি এই বিষয়ে না জানেন তাহলে এই টিউটোরিয়াল টি আপনার জন্য, যার মাধ্যমে আপনি ইসলাম শব্দের অর্থ কি এবং ইসলাম শিক্ষার গুরুত্ব ও ইসলাম ও ইমানের সম্পর্কের আরো অনেক কিছু জানতে পারবেন। 

ইসলাম শব্দের অর্থ কি


ইসলাম শব্দের অর্থ কি

ইসলাম শব্দের অর্থ কি এটা সকল মুসলমানদের জানা জরুরী। কিন্তু আমাদের নানান অজ্ঞতার কারণে আমরা মুসলিম হয়েও ইসলাম শব্দের সঠিক অর্থ জানি না। অথচ এটা জানা প্রতিটি মুমিনের জন্য ঈমানী দায়িত্ব ও কর্তব্য। তাই আসুন আমরা এই আর্টিকেলের মাধ্যমে ইসলাম শব্দের সঠিক অর্থ জানার চেষ্টা করি। 


ইসলাম শব্দের শাব্দিক অর্থ

ইসলাম শব্দটি আরবি সিলমুন ধাতু থেকে সরাসরি নির্গত। আরবিতে যার অর্থ করা হয় কারো আনুগত্য করা কিংবা কারো কাছে আত্মসমর্পণ করা। এই হিসাবে ইসলাম শব্দের শাব্দিক অর্থ দাঁড়ায় আনুগত্য করা, নিজেকে অন্যের নিকট বিনয়াবনত করা, কারো কাছে আত্মসমর্পণ করা, কারো হুকুম মান্য করা, কোন প্রকার দ্বিধা দ্বন্দ্ব ও আপত্তি ছাড়াই যেকোনো আদেশ-নিষেধ মেনে নেওয়া।


সুতরাং ইসলাম শব্দের ইসলামিক পারিভাষিক অর্থ হচ্ছে, একমাত্র আল্লাহর কাছে আত্মসমর্পণ করা। তাঁর কাছে নিজেকে বিনা শর্তে ছেড়ে দিয়ে তাঁর দিকে  বিনয়াবনত হওয়া। একইসাথে তাঁর কাছে নিজেকে এমনভাবে সপে দেওয়া, যেন একজন বান্দা তাঁর সকল আদেশ নিষেধ আইন কানুন ইত্যাদি মেনে চলে একমাত্র তাঁর ইবাদত করা। এখানে আসল কথা হচ্ছে,   মহান সৃষ্টিকর্তা আল্লাহর আদিষ্ট পথে চলে একজন মানুষ দুনিয়াবী জীবনযাপন করার নামই ইসলাম।



ইসলাম অর্থ শান্তি নয়

আমাদের উপমহাদেশে অধিকাংশ মানুষের ধারণা হচ্ছে, ইসলাম অর্থ শান্তি। কিন্তু ইসলাম অর্থ কোনোভাবেই শান্তি নয়। আরবিতে সালাম অর্থ হচ্ছে শান্তি। যা প্রতিটি মুসলমান তার যেকোনো মুমিন ভাইয়ের সাথে সাক্ষাৎ হলে দোয়া করে থাকে। সুতরাং সালাম এবং ইসলাম কখনোই একই আরবি নয়। তাহলে কোনো এই কথা ইসলাম অর্থ শান্তি আমাদের উপমহাদেশে প্রচলিত হলো?


এর উত্তর হলো, ব্রিটিশরা যখন এই উপমহাদেশ শাসন করেছিল, তখন মুসলমানরা জিহাদের মাধ্যমে তাদের তাড়ানোর চেষ্টা করে। মুসলমানদের প্রতিরোধের মুখে পড়ে তাদের রাজত্ব তখন যায় যায় অবস্থা। তখনই তাদের অর্থে পালিত ইুহুদী খ্রিস্টানদের চক্রান্তে একদল আলেমদেরকে দিয়ে তারা এটা প্রচার করতে থাকে যে, ইসলাম অর্থ শান্তি। ইসলামে মারামারি কাটাকাটি নেই। কারো সাথে ঝগড়া বিবাদ নেই। মুসলমানরা হচ্ছে শান্তিপ্রিয় জাতি। তাদের নবী কখনোই দুনিয়ায় অশান্তি সৃষ্টি করার জন্য বলেনি ইত্যাদি।


আর এভাবেই ব্রিটিশরা তখনকার একদল আলেম ওলামাদের সাহায্যের সকল সাধারণ মুসলমানদের মধ্যে এই কথা ছড়িয়ে দেয় যে, ইসলাম মানে শান্তি। তারা কখনোই রাষ্ট্র ক্ষমতার জন্য লড়াই ঝগড়া কিংবা সরকার বিরোধী কোনো কর্মকাণ্ডে জড়িত হয় না। বরং তাদের কাজ হলো নামাজ কালাম পড়ে আখিরাতের শান্তি খোঁজা।


ইসলাম ও ঈমানের সম্পর্ক

ইসলাম শব্দের অর্থের সাথে ঈমান শব্দটি সরাসরি জড়িত। কেননা একজন মানুষ তখনই ইসলামে প্রবেশ করতে পারে, যখন সে আল্লাহর উপর পরিপূর্ণ ঈমান আনে। আর এই ঈমান আনা বা আল্লাহর উপর বিশ্বাস স্থাপন করা হচ্ছে, আল্লাহ ও তার নবী রাসুল, ফিরিশতা, আসমানী কিতাব এবং তাকদির সম্পর্কিত যাবতীয় বিষয়ে বিশ্বাস করা ইসলামের এইসব মূল বিষয় গুলোর উপর যখন একজন মানুষ পরিপূর্ণ বিশ্বাস স্থাপন করে, তখনই সে একজন প্রকৃত মুসলমান হতে পারে। এইসব বিশ্বাস ছাড়া কোনো মানুষই নিজেকে মুসলমান দাবি করতে পারবে না। 


ইসলামের সাথে মুসলমানের সম্পর্ক

একজন মুসলিম দাবিদার তখনই প্রকৃত ইসলামে প্রবেশ করতে পারবে, যখন সে আল্লাহর উপর পরিপূর্ণ ঈমান তথা বিশ্বাস স্থাপন করবে। এই ঈমান শুধুমাত্র মৌখিক কোনো বিষয় নয়। বরং ঈমান হচ্ছে আল্লাহর যাবতীয় বিষয়ে মুখে স্বীকৃতির পাশাপাশি তা কর্মে প্রকাশ করা। অর্থাৎ শুধু মুখে কালেমা পড়ে অন্তরে স্বীকার করে নিলেই মুসলমান হওয়া যাবে না। বরং একজন মানুষ সত্যিকারের মুসলমান হওয়ার জন্য তার যাবতীয় বিষয় ইসলামিক পরিভাষায় পরিশুদ্ধ হতে হবে। নতুবা সে মুনাফিক মুসলমান হিসাবে বিবেচিত হবে।



ইসলাম শিক্ষার গুরুত্ব

আমরা এতক্ষণ জেনেছি ইসলাম শব্দের অর্থ কী এবং ইসলামের সাথে ঈমান ও মুসলমানের সম্পর্ক কী। এখন আমাদের জানতে হবে ইসলাম শিক্ষার গুরুত্ব কেন। আমাদের উপমহাদেশে অধিক পরিমাণে মুসলমান থাকলেও প্রকৃত ইসলাম কোথাও নেই। এর মূল কারণ, আমাদের পরিবার গুলোতে ইসলাম শিক্ষার কোনো গুরুত্ব না থাকা।


আমরা সন্তানদের আধুনিক শিক্ষায় শিক্ষিত করলেও নূন্যতম ইসলাম শিক্ষা তাদের দেই না। এই কারণে দিনদিন আমাদের দেশে নাস্তিক্যবাদ ছড়িয়ে পড়ছে। একইসাথে প্রকৃত ইসলাম সম্পর্কে জ্ঞান না থাকার কারণে অধিকাংশ মানুষ শিরক বিদআতের মতো জঘন্য ঈমান ধ্বংসকারী আকিদায় লিপ্ত রয়েছে। তাই আমাদের উচিত প্রতিটি পরিবার থেকে তাদের সন্তানদের প্রকৃত ইসলাম সম্পর্কে শিক্ষা দেওয়া। যাতে আমরা প্রকৃত ইসলাম সম্পর্কে জানতে পারি।


Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url